দৈনিক মতামত

মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী

Uncategorized

বাঙালীদের ৮ টি জনপ্রিয় সহজ রেসিপি

প্রিয় পাঠক! আমাদের ধারাবাহিক রেসিপির দ্বিতীয় পর্বে আমরা বাংলাদেশের সেরা ৮ টি জনপ্রিয় রেসিপি নিয়ে আলোচনা করবো।যারা আমাদের ১ম রেসিপি টিপ্সটি পড়েননি তারা পড়ে নিন মুরগি পোলাও রেসিপি টিপ্স । এটা আমাদের দ্বিতীয় পর্বের রেসিপি টিপস্। এখানে আমরা বাংলাদেশের সেরা ৮ টি রেসিপি নিয়ে আলোচনা করবো।আমাদের এই পর্বের আলোচনায় যা যা থাকছে।১)পটেটো অ্যান্ড এগ সালাদ। ২)মাসালা স্ক্রাম্বলড এগ ৩)গাজরের হালুয়া রেসিপি ৪)আলু পরোটা ৫)মিক্স ভেজি সবজি ৬)এগ সালাদ স্যান্ডউইচ ৭)মোজারেলা স্টিক ৮)সবজি পিয়াজু

পটেটো অ্যান্ড এগ সালাদ

আলু শর্করাবহুল সবজি। দেহের ওজন বৃদ্ধিতে বিশেষ সহায়ক। এ খাদ্য সহজে হজম হয়। আলুকে বলা হয় এসিডিটি প্রতিরোধক। আলুতে জিংকসহ অন্যান্য উপাদান থাকায় তা ত্বকের যত্নে বিশেষ উপযোগী।আর কথা না বাড়িয়ে ঝটপট দেখে নেই সবার পছন্দের ‘পটেটো অ্যান্ড সালাদ’।

৮ টি সহজ জনপ্রিয় রেসিপি
৮ টি সহজ জনপ্রিয় রেসিপি

উপকরণ

  1. সেদ্ধ আলু ৫০০ গ্রাম,
  2. সেদ্ধ ডিম দুটি,
  3. মেয়োনেজ চার টেবিল চামচ,
  4. সরিষা বাটা এক চা চামচ,
  5. পেঁয়াজ কলি কুচি দুটি,
  6. ছোট টমেটো কুচি দু/তিনটি,
  7. সবুজ ক্যাপসিকাম কুচি দুই থেকে তিন টেবিল চামচ,
  8. গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য,
  9. ধনেপাতা কুচি দুই টেবিল চামচ
  10. লবণ স্বাদমতো।

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে একটি বাটিতে সেদ্ধ আলু হালকা চটকে নিন। ভর্তার মতো করবেন না, যেন কিছুটা আস্ত থাকে আর কিছুটা মিশে যায়। এবার এতে ডিম, মেয়োনেজ, সরিষা বাটা, পেঁয়াজের কলি, টমেটো কুচি ও ক্যাপসিকাম কুচি দিয়ে একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার এর মধ্যে লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া দিন। সবশেষে ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে ৩০ মিনিট ফ্রিজে রেখে দিন। ব্যস, তৈরি হয়ে গেল পটেটো অ্যান্ড এগ সালাদ।

মাসালা স্ক্রাম্বলড এগ

ডিম আমদের খাবারের মধ্যে সবচেয়ে প্রিয় একটি জিনিস। ডিম খেতে ভালোবাসে না এমন মানুষ পাওয়া দুস্কর। ডিমে অনেক রকম পুষ্টি বিদ্যমান। ডিম এনার্জি বৃদ্ধিতে, হাড় ও দাঁত মজবুত করতে,চোখের সমস্যায়,রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।এবার দেখে নেওয়া যাক কিভাবে মাসালা স্ক্রাম্বলড এগ তৈরি করা যায়।

উপকরণ

  1. ফেটানো ডিম ৮ থেকে ১০টি,
  2. পেঁয়াজ কুচি একটি,
  3. কাঁচামরিচ কুচি দুটি,
  4. লাল মরিচের গুঁড়া আধা চা চামচ,
  5. আদা বাটা দুই চা চামচ,
  6. হলুদের গুঁড়া এক চা চামচ,
  7. জিরা দুই চা চামচ,
  8. তেল দুই টেবিল চামচ,
  9. ধনেপাতা কুচি দুই টেবিল চামচ
  10. লবণ স্বাদমতো।

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে একটি ননস্টিক প্যানে তেল দিয়ে তাতে জিরা ও হলুদের গুঁড়া দিন। ৩০ থেকে ৪৫ সেকেন্ড পর এতে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দুই মিনিট ভেজে নিন। এবার এতে কাঁচামরিচ কুচি, লাল মরিচের গুঁড়া ও আদা বাটা দিয়ে কষিয়ে নিন। দুই থেকে তিন মিনিট কষানোর পর এর মধ্যে ডিম দিয়ে তিন থেকে চার মিনিট রান্না করুন। এবার চুলা থেকে নামিয়ে প্লেটে ঢেলে গরম গরম পরিবেশন করুন মাসালা স্ক্রাম্বলড এগ।

গাজরের হালুয়া রেসিপি

গাজর নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের একটি।এর অনেক পুষ্টিগুণ বৃদ্ধমান। গাজরের হালুয়া ক্যালরির সঙ্গে সঙ্গে খাবার হজম করতে সাহায্য করে।গাজরে মধ্যে বিধ্যমান আছে  ভিটামিন ‘এ’, ‘বি’, ‘সি’ , যার জন্য শুধু শিশুদের জন্যই নয়—বড়দের জন্যও উপকারী।
রুটি হালুয়া ছোট বড় সবারই পছন্দ।ঘরে শিশুদের জন্য অনেকে সুজি ও বুটের ডালের হালুয়া তৈরি করে থাকেন। কিন্তু কখনো কি খেয়েছেন গাজরের হালুয়া?

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ গাজর সারা বছরই হাতের নাগালে পাওয়া যায়। তাই যেকোনো সময় ঘরেই তৈরি করতে পারেন শিশুদের প্রিয় গাজরের হালুয়া।আসুন দেখে নেওয়া যাক  কিভাবে তৈরি করতে হয় পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ  গাজরের হালুয়া।

উপকরণ

  1. গাজর ৪০০ গ্রাম,
  2. দুধ এক লিটার,
  3. চিনি আধাকাপ,
  4. গুঁড়ো দুধ আধাকাপ,
  5. ঘি আধাকাপ,
  6. বাদাম কুচি তিন টেবিল চামচ
  7. আর কিশমিশ সাজানোর জন্য।

প্রস্তুত প্রণালি

সর্বপ্রথমে গাজর দুধের মধ্যে সিদ্ধ করে নিতে হবে। দুধ শুকিয়ে যাওয়ার পর চুলা থেকে দুধ নামিয়ে ঠাণ্ডা করে ব্লেন্ডারে ভার করে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এবার একটি প্যানে ঘি দিয়ে তাতে ব্লেন্ড করা গাজর দিয়ে দিন।তারপর একের পর এক গুঁড়ো দুধ, চিনি ও এলাচ একসঙ্গে মিশিয়ে একটু নাড়তে থাকুন। হালুয়ার পানি শুকিয়ে যাওয়ার পর চুলা থেকে নামিয়ে পাত্রে ঢেলে নিন। ঠাণ্ডা হয়ে আসলে বাদাম কুচি ও কিশমিশ দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন দারুণ সুস্বাদু গাজরের হালুয়া।

আলু পরোটা

উপকরণ

  1. আলু ছয়/সাতটি,
  2. ময়দা দুই কাপ,
  3. কাঁচা মরিচ চারটি,
  4. ধনেপাতা পরিমাণ মত,
  5. কালো গোলমরিচের গুঁড়া আধা টেবিল চামচ,
  6. মাখন স্বাদ মত,
  7. লবণ স্বাদমত।

প্রস্তুত প্রণালি

সবার আগে আলু সেদ্ধ করে চটকে নিন। একটি ব্লেন্ডারে কাঁচামরিচ ও ধনেপাতা ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। এবার আলুর মিশ্রণের সঙ্গে কাঁচামরিচের মিশ্রণ ও গোলমরিচের গুঁড়া মিশিয়ে নিন।২।ময়দার সঙ্গে আলুর মিশ্রণ মিশিয়ে খামির তৈরি করে নিন। এখন পরোটার মতো করে বেলে নিন। চুলায় ননস্টিক প্যানের ওপর মাখন দিয়ে পরোটা ভেজে নিন।৩।টক-মিষ্টি বা টক দই দিয়ে সাজিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন দারুণ সুস্বাদু আলু পরোটা।

মিক্স ভেজি সবজি

সবজি যারা খেতে পছন্দ করেন, তাদের জন্য শীতকাল খুব প্রিয় একটি ঋতু। বাজারে গেলে পাওয়া যায় নানা রকম সবজির দেখা। প্রায় প্রতিদিন সকলেই ঘরে রান্না করে থাকেন কোন না কোন সবজি। কিন্তু প্রতিদিন একই ধরণের সবজি খেতে কার ভাল লাগে বলুন? সবজি রান্নাটি একটু ভিন্নভাবে করা গেলে দারুন হয়, তাই না? প্রতিদিনকার সবজি রান্না করুন একটু ভিন্নভাবে রেস্টুরেন্ট স্টাইলে।

উপকরণ

  • ৩টি বড় টমেটো
  • ২টি মাঝারি আকারে পেঁয়াজ
  • ২ টেবিল চামচ কাজুবাদাম
  • ১-১/২ টেবিল চামচ তেল
  • ১/৪ কাপ আলু কুচি
  • ১/৪ কাপ গাজর কুচি
  • ১/৪ কাপ ফুলকপি
  • ১/৪ কাপ বিনস
  • ১/৪ কাপ মটরশুঁটি
  • ১/৪ কাপ ক্যাপসিকা কুচি
  • ১/৪ কাপ পনির কুচি
  • ২-৩ টেবিল চামচ মাখন
  • ২-৩ টেবিল চামচ ক্রিমধনেপাতা
  • কুচিলবণ স্বাদমত
  • ১-১/২ টেবিল চামচ কাশ্মেরী লাল মরিচ গুঁড়ো
  • ১ চা চামচ ধনিয়া গুঁড়ো
  • ১ চা চামচ জিরা গুঁড়ো
  • ১/২ চা চামচ গরম মশলা গুঁড়ো
  • ১/২ চা চামচ কাসরি মেথি
  • ১/২ চা চামচ আদা রসুন পেস্ট
  • ৩-৫ টেবিল চামচ তেল
  • ১টি ভাজা পাঁপড়া (ইচ্ছা)

প্রস্তুত প্রণালী

  1. ১। গ্রেভির জন্য প্রথমে প্যানে তেল গরম করতে দিন।
  2. এরপর এতে টমেটো কুচি, কাজুবাদাম এবং পেঁয়াজ কুচি দিয়ে মঝারি আঁচে নাড়ুন।
  3. টমেটো নরম হয়ে এলে এতে পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন।
  4. এখন আরেকটি প্যানে তেল গরম করতে দিন। এতে আলু কুচি, গাজর কুচি দিয়ে ভাজুন। ভাজা হয়ে গেলে নামিয়ে ফেলুন।
  5. আবার ফুলকুপি, বিনস, এবং পনির দিয়ে ভেজে নামিয়ে ফেলুন।
  6. এখন বাকি তেলের সাথে মাখন দিয়ে দিন। মাখন গলে গেলে আদা রসূনের পেস্ট দিয়ে নাড়ুন।
  7. এরপর এতে টমেটো পেস্ট, লবণ, লাল মরিচ গুঁড়ো দিয়ে ভাল করে নাড়ুন।
  8. বলক না আসা পর্যন্ত এটি নাড়তে থাকুন।
  9. গ্রেভি রান্না হয়ে গেলে এতে মটরশুঁটি, ক্যাপসিকাম কুচি দিয়ে ২-৩ মিনিট নাড়ুন।
  10. তারপর এতে ভাজা সবজিগুলো দিয়ে দিন।
  11. ধনিয়া গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো, গরম মশলা গুঁড়ো, কাসরি মেথি দিয়ে দিন।
  12. এবার ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ৫ মিনিট রান্না করুন।
  13. শেষে ক্রিম, ধনে পাতা কুচি দিয়ে দিন।১
  14. চুলা থেকে নামানোর আগে ভাজা পাঁপড় গুঁড়ো করে দিয়ে মিশিয়ে নিন।
  15. ব্যস তৈরি হয়ে গেল মজাদার রেস্টুরেন্ট স্ট্যাইল। মিক্স ভেজি সবজি!

এগ সালাদ স্যান্ডউইচ

উপকরণ

  1. পাউরুটি চার টুকরা,
  2. সেদ্ধ ডিম দুটি,
  3. মেয়োনেজ অথবা মাখন চার চা চামচ,
  4. টমেটো একটি,
  5. অল্প পেঁয়াজ রিং,
  6. ক্যাপসিকাম কুচি দুই টেবিল চামচ,
  7. লেটুস পাতা অর্ধেকটা,
  8. শুকনো মরিচ গুঁড়া সামান্য,
  9. গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য,
  10. লবণ স্বাদমতো
  11. ঘি পরিমাণমতো।

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে একটি বাটিতে ডিম, মেয়োনেজ, শুকনো মরিচের গুঁড়া, লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া ভালো করে মিশিয়ে নিন। পাউরুটির ওপর এই মিশ্রণ ভালো করে ছড়িয়ে দিন। এর ওপর টমেটো কুচি, পেঁয়াজ রিং, ক্যাপসিকাম ও লেটুস পাতা দিন। এবার অন্য একটি পাউরুটি দিয়ে ঢেকে দিন। অল্প আঁচে সামান্য ঘি দিয়ে ৩০ সেকেন্ড পাউরুটির দুই পাশ সেঁকে নিন। ব্যস, খুব সহজেই তৈরি হয়ে গেল স্বাস্থ্যকর এগ সালাদ স্যান্ডউইচ।

মোজারেলা স্টিক

উপকরণ

  • মোজারেলা চিজ ৩০০ গ্রাম,
  • ময়দা আধা কাপ,
  • বেসন আধা কাপ,
  • গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য,
  • তেল এক কাপ,
  • বিস্কুটের গুঁড়া আধা কাপ।

প্রস্তুত প্রণালি

সর্ব প্রথম মোজারেলা চিজ চিকন করে কেটে নিন। এবার একটি বাটিতে ময়দা, গোলমরিচের গুঁড়া ও বেসন একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এর মধ্যে পানি দিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন।> এখন চিজগুলো ময়দার মিশ্রণে মেখে বিস্কুটের গুঁড়া লাগান। প্লেটে নিয়ে দুই থেকে তিন ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন। এর ফলে চিজ সহজে গলে যাবে না। তেল গরম করুন। ডুবো তেলে চিজ স্টিকগুলো ভাজতে থাকুন। বাদামি হয়ে গেলে প্লেটে তুলে সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন মোজারেলা স্টিক।

সবজি পিয়াজু

অনেক ধরনের পিয়াজু আছে।ভিন্ন ভিন্ন উপকরণের পিয়াজুর ভিন্ন ভিন্ন স্বাদ থাকে।সবজি পিয়াজুরও রয়েছে আলাদা একটি স্বাদ।যা একবার খেলে অনেক দিন মনে থাকবে।এবার ঝটপট দেখে নেই এর উপকরণ ও প্রস্তুতপ্রণালি…

উপকরণ

  • ১. মসুর ডাল আধা কাপ,
  • ২. মটর ডাল আধা কাপ,
  • ৩. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ,
  • ৪. গাজর কুচি ৩ টেবিল চামচ,
  • ৫. পাতাকপি কুচি আধা কাপ,
  • ৬. আলু কুচি ২ টেবিল চামচ,
  • ৭. মটরশুঁটি ৩ টেবিল চামচ,
  • ৮. ধনিয়াপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ,
  • ৯. কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,
  • ১০. আদা বাটা আধা চা-চামচ,
  • ১১. রসুন বাটা আধা চা-চামচ,
  • ১২. মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ,
  • ১৩. হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ,
  • ১৪. বেসন ২ টেবিল চামচ,
  • ১৫. বেকিং পাউডার আধা চা-চামচ,
  • ১৬. লবণ পরিমাণমতো।

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে ডাল ৩-৪ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে দিতে হবে।তারপর ধুয়ে পানি ঝরিয়ে বেটে নিতে হবে।তারপর একটি বাটিতে বেটে নেওয়া ডাল সহ উপরের সব উপকরণ দিয়ে ভালোভাবে  মাখিয়ে নিতে হবে।এরপর গরম তেলে  ভেজে নিন।একটু সময় নিয়ে ভাজবেন যাতে একটু মচমচে হয়।এতে খেতে দারুণ লাগবে।।

প্রিয় পাঠক! সহজ রেসিপি গুলো কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *